সাম্প্রতিক:

বেঁচে গেল নতুন টাইটানিক

New Titanic Gets New Life, নতুন জীবন পেল নতুন টাইটানিক

‘অ্যানথেম অফ দ্য সি’ নামের নতুন টাইটানিক অল্পের জন্য রক্ষা পেল ভয়াবহ ট্রাজেডি থেকে। ২০১৫ সালে যাত্রা শুরু করে এই প্রথম ভয়াবহ দুর্ঘটনার মুখোমুখি হয় প্রমোদ তরীটি। এটি পৃথিবীর ৩য় বৃহত্তম প্রমোদ তরি হিসেবে পরিচিত।

বাহামা দীপপুঞ্জের প্রায় কাছে গত রবিবার ঝড়ের মুখোমুখি হয় জাহাজটি। সেখানে ৪০ ফুট উচ্চতার জলচ্ছাসের কবলে পরে যায়। সেই মুহূর্তে জাহাজটিতে যাত্রী ছিল ৪৫২৯ জন। ঝড়ের কারণে সকল যাত্রী অনেক ভয় পেয়ে যায়। জাহাজটির কর্তৃপক্ষ যাত্রীদের কেবিনে থাকার অনুরোধ করেন। যাত্রীরা তাদের নিজ নিজ যায়গায় থাকার কারণে কোন হতাহত হয়নি।

Titanic Gets New Life, টাইটানিক পেল নতুন জীবনসেখানে অবস্থান করা যাত্রীরা বলেন, কোন প্রকার সতর্কতা না মেনে জাহাজটি চালান হয়েছিল। জলোচ্ছ্বাসের আঘাতে জাহাজটির অনেক ক্ষতি হয়েছে, জানালাগুলো ভেঙ্গে গিয়েছে।

গত শনিবার জাহাজটি কেপ লিবার্টি সমুদ্র বন্দর থেকে যাত্রা শুরু করে। সপ্তাহ খানিক ভ্রমনের পর জাহাজটি বাহামা দ্বীপপুঞ্জে অবস্থান করার কথা ছিল। যাত্রীরা তাদের অভিজ্ঞতা বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়াতে তুলে ধরেন।

যাত্রীদের মধ্যে একজন বলেন, এর আগে তিনি অন্তত ২০ বার প্রমোদ তরীতে ভ্রমন করেছিলেন। কিন্তু এই প্রথম কোন ভয়াবহ দুর্ঘটনার কবলে পড়েন।Taitanic Gets Life, জীবন ফিরে পেল টাইটানিক

ঘটনার সময় জাহাজটি বাতাসে দুলতে থাকে, কোন ভাবে সেটা কারো পক্ষে নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব ছিল না। কোন যাত্রী তাদের কেবিন থকে বের হতে পারছিল না।

অবশ্য এর জন্য জাহাজ কর্তৃপক্ষ যাত্রীদের কাছে ক্ষমা চেয়ে নিয়েছেন এবং পরবর্তী ভ্রমনের জন্য ৫০ ভাগ ছাড় ঘোষণা করেছেন ক্ষতিপূরণ হিসেবে।

১৯১২ সালে টাইটানিক অ্যাটলান্টিক মহাসাগরে বরফ খণ্ডের সাথে ধাক্কা খেয়ে দুবে যায় যার কথা আমরা সবাই জানি। সেই টাইটানিক ট্রাজেডিতে প্রায় ১৫০০ যাত্রীর প্রাণহানি ঘটে। এবার ২০১৬ সালে বেঁচে গেলে নতুন টাইটানিক।