সাম্প্রতিক:

জেনে নিন হার্ট অ্যাটাক হলে যা করনীয়

হার্ট-অ্যাটাক-heart-attack-bangla-tips

Heart অর্থাৎ হৃদপিণ্ড আমাদের সারা শরীরে রক্ত সরবরাহ করে থাকে। রক্ত ফুসফুস থেকে অক্সিজেন গ্রহন করে সমস্ত শরীরে পৌঁছিয়ে দেয় আর শরীরের কোষগুলো সেই অক্সিজেন গ্রহন করে। যা আমাদের বেঁচে থাকার জন্য প্রয়োজন। বিভিন্ন কারণে Coronary Artery ব্লক হতে পারে যার কারণে Heart Muscle অকেজো হয়ে যায়। ফলে আস্তে আস্তে Heart Pumping বন্ধ হয়ে যায়। এর ফলে শরীরে রক্ত প্রবাহ বন্ধ হয়ে যায়, এ জন্য শরীরের কোষ গুলো অক্সিজেন থেকে বঞ্চিত হয়ে যায়। অবশেষে মানুষ মৃত্যুর কোলে ঢলে পরে। Heart Attack কে Myocardial Infarction ও বলা হয়।

আসুন জেনে নেই হার্ট অ্যাটাক (Heart Attack) এর কারণগুলি কি?

১। অতিরিক্ত মাত্রায় তেল বা চর্বি জাতীয় খাবার খেলে।

২। সবসময় মানসিক চাপের মধ্যে থাকলে।

৩। রক্তে Cholesterol এর মাত্রা বেড়ে গেলে।

৪। উচ্চ রক্তচাপ (Blood Pressure)

৫। ডায়াবেটিস (Diabetes)

৬। অতিরিক্ত মাত্রায় Alcohol গ্রহন করলে।

৭। অতিরিক্ত ধূমপান করলে।

আপনাদের মনে প্রশ্ন আসতে পারে যে, মানষিক চাপের কারণে কিভাবে Heart Attack হতে পারে? আসুন তাহলে জেনে নেই,

মানুষিক চাপের কারণে উচ্চ রক্তচাপ (Blood Pressure) বেড়ে যায় এর ফলে হৃদপিণ্ডের স্পন্দনও বেড়ে যায়, এর কারণে রক্তের মধ্যে Cholesterol জমাট বাঁধতে শুরু করে। এভাবে ফ্যাট (Cholesterol)জমা হতে হতে একসময় Artery গুলো ব্লক হতে শুরু করে। হয়ে যায় Heart Attack. এছাড়াও অতিরিক্ত মানুষিক চাপের কারণে রক্তে গ্লুকোজের পরিমাণ বেড়ে যায় ফলে ধমনীগুলো অধিক ক্রিয়াশীল হয়ে উঠে যার ফলে Blood Clotting হতে পারে। Artery গুলোর গায়ে আস্তে আস্তে Cholesterol জমা হতে থাকে ফলে ধীরে ধীরে রক্ত চলাচলের পথ বন্ধ হয়ে যায়। হয়ে যায় Heart Attack.

আসুন জেনে নেই, হার্ট অ্যাটাক এর লক্ষণগুলো কি কি?

১। বুকে প্রচণ্ড ব্যথা অনুভব হতে পারে।

২। বুকে প্রচণ্ড চাপ অনুভব হতে পারে।

৩। বুকের বাম পাশে চিন চিন ব্যথা প্রচণ্ড অনুভব হতে পারে।

৪। পেট জ্বালা-পোড়া করতে পারে বিশেষ করে পেটের উপরের অংশে জ্বালা-পোড়া হতে পারে।

এসবের সাথে সাথে নিম্মক্ত ঘটনাগুলোও ঘটতে পারে।

 ৫। ঘন ঘন শ্বাস-প্রশ্বাস হতে পারে।

৬। প্রচণ্ড ঘাম হতে পারে।

৭। অজ্ঞান হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকতে পারে।

৮। চোখে ঝাপসা দেখা যেতে পারে।

৯। বমি হতে পারে।

আসুন জেনে নেই হার্ট অ্যাটাক (Heart Attack) হলে করনীয়ঃ

হার্ট অ্যাটাক হলে অধিকাংশ মানুষ মারা যায়। তবুও কিছু কিছু কাজ করলে বাঁচানো যেতে পারে। হার্ট অ্যাটাক হয়ে গেলে যা করবেন।

১। জোরে জোরে শব্দ করে কাশি দিন।

২। লম্বা শ্বাস নিন।

৩। শ্বাস নিন আবার কাশি দিন এভাবে ২-৩ সেকেন্ড করতে থাকুন।

যা করা যায়ঃ

১। হার্ট অ্যাটাক হয়েছে বুঝলে অ্যাসপিরিন জাতীয় অসুধ খাইয়ে দিন। কারন অ্যাসপিরিন রক্ত জমাট বাধা রোধ করে।

২। জিহ্বার নিচে Nitroglycerin Spray দিতে পারেন।

৩। রোগীকে মানুষিকভাবে আশ্বস্ত করুন।

হার্ট অ্যাটাক (Heart Attack) প্রতিরোধে যা করনীয়ঃ

১। ধূমপান বন্ধ করুন।

২। অ্যালকোহল অথবা মাদক নেয়া বন্ধ করতে হবে।

৩। মানুষিক চাপে থাকা যাবে না।

৪। Blood Pressure নিয়ন্ত্রনে রাখতে হবে।

৫। Diabetes কে নিয়ন্ত্রনে রাখতে হবে।

৬। রক্তের চর্বি অর্থাৎ Cholesterol এর পরিমাণ নিয়ন্ত্রন করতে হবে।

৭। নিয়মিত ব্যায়াম করতে হবে।

৮। শরীরের ওজোন কমাতে হবে।

উপরোক্ত পোস্টটি শুধুমাত্র জ্ঞান অর্জনের জন্য আপনারা অবশ্যই অভিজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শ গ্রহন করবেন। আর হ্যাঁ, কোন ব্যক্তির Heart Attack হলে বা Blood Pressure বেড়ে গেলে তাকে যেন কোন অবস্থায় স্যালাইন জাতীয় কোন কিছু দেয়া না হয় তাহলে রোগীর অবস্থা আরও বেশি খারাপ হতে পারে।

মনে রাখবেন অনুমতিপ্রাপ্ত চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া যে কোন চিকিৎসা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ।

আসুন জ্ঞান অর্জন করি সচেতন হই, পরিবারকে সচেতন করি, সমাজকে সচেতন করি, দেশের মানুষকে সচেতন করি।

ধন্যবাদ।